Bangla Bhuter Golpo – জমিদার বাড়ির ভালো ভূত

Bangla Bhuter Golpo: আজ আমরা একটা ভালো ভূতের গল্প নিয়ে এসেছি। কারণ সব ভূত খারাপ হয় না. গল্পটির নাম হলো “জমিদার বাড়ির ভালো ভূত”।

Bangla Bhuter Golpo – জমিদার বাড়ির ভালো ভূত

আজ থেকে প্রায় 10-15 বছর আগে। আমি আর আমার সপরিবার সবাই মিলে আমাদের পুরাতন বাড়ি যেটি আমার দাদুর দাদু করে দিয়েছিলেন সেই বাড়িতেই থাকতাম এবং সেই বাড়িটি মাহাত্ম্য একটু আলাদা ছিল যেহেতু সেটা অনেক পুরনো ছিল সেই কারণে আমাদের বাড়িটিকে অনেকে, অনেক নামেই চিনতো অনেকে তো আবার ভূত বাঙলো বলেও ডাকাডাকি করত কিন্তু যদিও আমার দাদু ছিলেন জমিদার পরিবারের সেই কারণে বাড়িটি নাম পায় জমিদার বাড়ি।

আমার দাদু ছিলেন একটু রাগী টাইপের কিন্তু দয়ালু ও বটে দাদু তার বিঘার পর বিঘা জমি গরিবদের দান করে বেরিয়েছেন, এই কারণে যদিও সে অনেক নামো পেয়েছেন।

বড় বড় নেতারা আমাদের বাড়িতে আসতো খেত, কথাবাত্রা বলতো। এগুলো যদিও আমার সবই সোনা কথা কারণ আমি জন্মাবার আগেই আমার দাদু মারা জান এই কারণে আমার আর তাকে দেখা হয়নি।

আমাদের বাড়ির পেছনের দিকটায় একটা তাল গাছ ছিল, ছোটবেলায় মা আমাকে বলেছিল যে সন্ধ্যার পরে ওই তাল গাছের নিচে যেন আমি না যাই, না হলে নাকি আমাকে ভুতে ধরবে। যেহেতু তখন আমি ছোট ছিলাম আমি কথাটি খুব ভালোভাবে শুনেছি এবং কোনদিনও সন্ধ্যার পরে তাল গাছের নিচে আমি যাইনি কিন্তু এক দেড় বছর যাওয়ার পর কেন জানিনা হঠাৎ আমার ওই গাছটার তলায় যেতে ইচ্ছা হল, এবং শেষ পর্যন্ত আমি সেই গাছটির তলায় যখন সন্ধ্যার পরে গেলাম তখন আমার সেরকম কোন কিছুই মনে হল না এবং মনে হচ্ছিল মা আমায় ছোটবেলায় ভয় দেখানোর জন্যই সমস্ত কথাগুলো বলেছে তাছাড়া আর এই গাছের তলে কিছুই নেই।

Bangla Bhuter Golpo

এইভাবে প্রায় দিনই আমি মায়ের কথা অবজ্ঞা করে কেন জানিনা ওই গাছ তলায় গিয়ে চুপটি করে বসে থাকতাম এবং কি সমস্ত ভাবতাম যদিও আমার ভাবনার কোন চাবিকাঠি ছিলনা তাই জন্য আমি আমার ভাবনার জগত টাকে সীমাবদ্ধ করতে চাইনি, এই কারণে আমার ভাবনার সীমানা অনেকটাই বেশি ছিল যাই হোক এবার আসি মূল পর্বে-

একদিন পাড়ায় খেলতে গিয়ে আমি আমার বন্ধু দের কে বললাম যে, ‘তোরা যেটা ভাবিস তালতলায় তেমন কিছুই নেই আমি প্রতিদিন সন্ধ্যায় কি ওখানে বসেই থাকি কিছুই তো হয় না’। কথাটি শুনে সবাই আমাকে বলে তোকে কেন কিছু করবে তুইতো তাদেরই বাড়ির না এইজন্য তোকে কোন কিছুই করে না। আমি কথাটির কোন আগা মাথা কিছুই বুঝতে পারিনি সেই কারণে রীতিমত আমি বাড়িতে এসে মাকে পুরো কথাটা বলে দিই; পরবর্তীতে মা আমাকে যেটা বলল সেটা আমার গায়ে কাঁটা জাগানোর মতো ছিল। মা আমাকে বলল, আমাদের বাড়ির পেছনদিকে যে তালগাছটা আছে সেটি তোর দাদু বুনে গিয়েছিল এবং সবাই বলে যে রাতের বেলায় যদি কেউ ওখানে যায় তাহলে নাকি সে নানান রকমের আওয়াজ শুনতে পায় যদিও সেই আওয়াজ কাউকে কখনো ভঁয় দখায় নি।

আমি কথাটি শুনে ভয় পায়াছিলাম ঠিকই কিন্তু আমার দাদুর স্মৃতি বলে আমি সেই বিষয়ে একটুও ঘবরে যাই নি এবং একদিন আমি রাতের দিকে সেখানে যাই আর ওখানে গিয়ে আমি যেটা দেখলাম সেটা আমি কাউকেই বুঝিয়ে উঠতে পারবো বলে আমার মনে হয় না; আমি দেখলাম একটা সাদা ধোয়া গাছের চারে পাশে ঘোরাঘুরি করছে আর আমাকে দেখে সেটা যেনো থেমে গেলো আর আমার সামনাসামনি স্থির ভাবে দাড়ালো; কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই সেটা হটাৎ করে ধা হয়ে গেলো আমার চোখের সামনে থেকে। আমি বুজলাম যে দাদু আমাকে দেখতে এসেছিল কিন্তু আমি এই কথা টি কাউকে আর বলি নি আর নিজের মনের মধ্যেই দাদুর স্মৃতি হিসেবে রেখে দিয়াছি।

তো বন্ধুরা আমাদের এই Bangla Bhuter Golpo টি পরে আপনাদের কেমন লাগলো জানাবেন। গল্পটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন: Bengali Bhooter Golpo – পুরনো জাম গাছের ভূত

Leave a Comment