Bengali Bhooter Golpo – পুরনো জাম গাছের ভূত

Bengali Bhooter Golpo – পুরনো জাম গাছের ভূত

Bengali Bhooter Golpo: যখন আমি দশম শ্রেণীর ছাত্র ছিলাম তখন একদিন রাতের বেলায় মায়ের সাথে গল্প করতে করতে, মা আমাকে তার কলেজে পড়াকালীন ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা শোনাতে লাগলো।

মা কলেজে পড়াকালীন ছোট বাচ্চাদের টিউশন পড়াতো এবং প্রায় অনেকগুলি ব্যাচ থাকার জন্য মা একদমই নাকি টাইম পেত না সকাল বেলা উঠে একটা ব্যাচ পরিয়ে কলেজে যেত, আবার কলেজ থেকে এসে কোনরকম খাবার দাবার খেয়ে আবার পড়ানোর ব্যাচে ছুটে যেতে হতো এবং পরপর দুটো ব্যাচ পড়ানোর পর অনেক রাত করে বাড়ি ফিরতে হত।

এমনভাবে মায়ের মাসের পর মাস কেটে যায় কিন্তু হঠাৎ একদিন যখন মা পড়িয়ে বাড়ি ফিরছিল সেই সময় নাকি একটু বেশি রাত হয়ে গেছিল এবং মা রীতিমতো সেদিনও তেমনভাবেই আসছিল যেমনভাবে প্রত্যেকদিন আসে বাড়ি ফেরার পথে সেখানে একটা বহু পুরনো জামগাছ ছিল এবং মা আগেও শুনেছে যে সেই জাম গাছে নাকি ভুত বাস করত কিন্তু যেহেতু মা এসব বিশ্বাস করতো না সেহেতু মা এই ব্যাপারটাকে নিয়ে অতটা ভাবেনি; তখনকার দিনের নামকরা কলেজের ছাত্রী ছিল বলে কথা এ সব ভুতুড়ে ফালতু গল্প বিশ্বাস করাটা তাকে না মানানোরি কথা।

কিছুটা পথ যেতে যেতে মায়ের নাকি হঠাৎই শরীরটি থমকে যায় এবং আস্তে আস্তে পুরো শরীর ভারী হতে থাকে, মা সামনে তাকিয়ে দেখতে পায় ওই পুরনো জামগাছের নিচের শিকড়ে একটা লম্বা পা আর তার ঠিক 5 ফুট ওপরে আর একটা লম্বা পা, সাথে সাথে মা উপরের দিকে তাকায় মানে জাম গাছের শীর্ষ সীমানায় কিন্তু তাকিয়ে সে যা দেখে সেটি দেখার সাথে সাথেই মা অজ্ঞান হয়ে যায়; সেই সময় পেছন থেকে আসা একজন ব্যক্তি যে আমার মায়ের দাদাকে চিন্ত সেমা কে চিনতে পেরে সাথে সাথে নিজের সাথে করে নিয়ে বাড়িতে ছেড়ে দিয়ে আসে। তারপর নাকি মা এক সপ্তাহ চোখ খুলতে পারেনি আর শুধু তাই নয় বিছানা থেকে ওঠা যেন মায়ের বন্ধ হয়ে গেছিল।

আমি প্রথমে মায়ের কথাগুলো কেন জানিনা বিশ্বাস করেও বিশ্বাস করতে পারছিলাম না কিন্তু পরবর্তীতে মামাবাড়ি গিয়ে যখন দিদাকে আমি পুরো ঘটনাটি খুলে বললাম তখন দি দাও মায়ের কথাটি সঠিক বলে উঠলো। আমি কোনদিনও আমার দিদার কথার উপরে কথা বলিনি অর্থাৎ আমি এটা নিশ্চিত ছিলাম যে না মা যে কথাটি বলেছে সেটা একদমই সত্যি।

যদিও এখন আর সেই পুরনো জামগাছ নেই না হলে হয়তো আমারও দেখার ইচ্ছে ছিল সেটাকে।

তো বন্ধুরা আমাদের এই Bengali Bhooter Golpo টি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে গল্পটি শেয়ার করে আমাদের সহযোগিতা করবেন। গল্পটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment