Golpo golpo – জানিনা কি ছিল সেটা, ভয় না ভুলঃ

Golpo golpo: “জানিনা কি ছিল সেটা, ভয় না ভুলঃ” এটা আমি এখনো জানতে না। আপনারা গল্পটি অবশ্যই শেষ পর্যন্ত পড়বেন।

Golpo golpo – জানিনা কি ছিল সেটা, ভয় না ভুলঃ

সাল টা ছিল ২০১৬ কি ২০১৭,এবার যদি তারিখ বলতে যাই তাহলে হয়ত সমস্যায় পরব।

ঘটনাটা ঘটার ঠিক ১ সপ্তাহ আগে যখন- আমি,কাকা ও কাকিমা সবাই বসে গল্প করছিলাম। সেই সময় কাকা তাদের সময়কার অর্থাৎ ১৯৫৬ সাল এ আমাদের পুরাতন বাড়ি ও তার আশপাশ সম্পর্কে আমকে আর বোন কে বলছিল (এখানে বোন বলতে কাকর মায়ে কে বলা হয়েছে)। গল্প বলতে বলতে কাকা তার ঠাকুমা এর কাছে শোণা একটা কথা আমাদেরকে বলতে লাগলো- সেই সময় নাকি আমাদের বাড়ীর আশপাশের এলাকা খালী থাকয় রাস্তার থেকে কিছুটা দূরে একটা কালী মন্দির করা হয়েছিল।

আর কাকা আরও বললও যে আমাদের বাড়ীর পেছনের দিকে যে পাড়া আছে আগে সেখানে একটা গাছকে কেন্দ্র করে শিব পুঁজ করা হত।

(বলে রাখা ভালো যে কালী মন্দিরটা আর গাছটা এখনো নিজের জায়গাতেই আছে) এবং সেই সময় এটা প্রচলিত ছিল যে রোজ নিশি রাতে নাকি মহাদেব শিব কালি মন্দিরে যেতেন; কাকা একটু রশিকতার সাথে বলল যে এখনও কিন্তু মাঝে মাঝেই শিব কালি মন্দিরে যায়, আর তার সাথে সাথে কাকিমাও একিই সুরে এককই কথা বলল।

কিন্তু আমি আর আমার বোন কথা গুল কে কানে না লাগিয়ে সেই কথা গুলোর ব্যাঙ্গ করতে সুরু করলাম,যেটা আমরা প্রায় সবসময়ি করতাম। আমার তখন মনে হয়েছিল যে যেহেতু আমার ঘর টা আমাদের বাড়ির থাকে একটু দূরে ছিল তাই বুঝি কাকা আমাকে ভয় দাখানোর জন্য কথা গুলো আমাকে বলছিল।

আমি যে ঘর টায় এখন আছি সেই ঘর টা আগে আমাদের বাড়ির স্টোর রুম হিসাবে ব্যবহার করা হত কিন্তু আমি যেদ করে সেই ঘরে আমার সব জিনিস নিয়ে আসি। সেই সময় আমাদের পাসের বাড়ির ছেলে রজতও আমার সাথেই ঘুমত কারন একটা ছিল যেটা না বললেও চলে, কিন্তু একটা জিনিস বলে রাখা ভাল যে রাজাতকে ঘুম থেকে জাগানোটা ঠিক কুম্ভকর্ণ কে ঘুম থেকে জাগানোর মতই খুব কষ্টসাধ্য কাজ ছিল, আর হ্যাঁ আমরা অনেক রাত পর্যন্ত জেগে গেম খেলতাম;ক্রমশ এটা আমাদের অভ্যাস এ পরিনত হয়ে যায়। আরও একটা কথা বলে রাখি যে রজত সোমবার দিন রাত এ আমার সাথে ঘুমত না।

এই সোমবার থেকেই সুরু হয় যত কাণ্ড, ঠিক রাত ১২ টা কি ১২.৩০ টা সেই সময়ই কাকার কথা গুলো মনে পরে যায়, আর তারপর জেতা হওয়ার সেটাই হয় মানে রীতিমত ভয় পেয়ে ঘুম আর কিছুতেই আসে না, শেষ পর্যন্ত ঘুমাই তখন ঠিক কটা বেজেছিল সেটা আমার মনে নেই। সকাল বালায় ঘুম থেকে উঠতে একটু দেরি হয়ে যায়, আর সব কথা মা আর ঠাকুমা কে বলি ; ঠাকুমা আর মা দুজনাই আমাকে বকাবকি করলো যেটা সব মারাই করে থাকে।

মঙ্গলবার রাত ৯ টা, রজত ঘুমতে আসলো দুজনাই ঘরে গিয়ে আড্ডা দিতে সুরু করলাম, আড্ডা দিতে দিতে রজত কে আমি আমার কাকার বলা সব কথা খুলে বললাম আর রজত আর আমি দুজনাই হাসতে সুরু করলাম। কিছুক্ষণ পরে আমারা আবার গেম খেলতে

সুরু করি তার পরমুহুরতে যখন প্রায় ১২.৪৫ বাজে সেই সময় আমারা দুজনাই ঝুমুর পরে হেটে যাওয়ার একাটা শব্দ শুনতে পাই দুজনাই একটু হত ভম্ব হই ঠিকই কন্তু সেই সব দিকে কান না দিয়ে আবার গেম খেলায় মেতে পরি ও ঘুমিয়ে পরি।

এই ভাবে রোজ রাতেই আমারা ওই শব্দ শুনতে পাই কিন্তু আগের মতই কোনও গুরুত্ব না দিয়ে ঘুমিয়ে পরতাম, কিন্তু যখন একদিন শব্দটা আমাদের ঘরের সামনে থেকে একদম পষ্ট ভাবে শোনা যায় সে দিনকে আমরা ঠিক করি যে এরপরের দিন শব্দ শোনা গেলেই দুজনে উঠে বিষয় টা ঠিক। কি সেটার খোঁজ করবো। কিন্তু তার পররের দিন সেমন কোনও শব্দ আমরা শুন্তেই পেলাম না, তাই আমারাও আর বেরলাম না। কিন্তু কয়েকদিন পর আবার আমরা সেই শব্দ শুনতে পাই কিন্তু সেদিন রজত একটু আগেই ঘুমিয়ে পরেছিল, ওকে অনেক ডাকার পরও যখন

ও উঠল না তখন আমি নিজেই বেরিয়ে গিয়ে কি সেই জিনিস সেটা জানর জন্য বেরিয়ে পরি, কি জানি বাবা আমার মধ্যে ঠিক কি করে যে এত সাহস আসল আমি সেটা এখনও ভেবে উঠতে পারি না।

আমি রীতিমত বাইরে বেরিয়ে সেই শব্দের পেছনে যেতে সুরু করি কিন্তু কিছুটা যাওয়ার পর যখন শব্দটা হুট করে থেমে যায় তখন আমি কি করবো কি করবো ভেবে কাকার বলা কথা অনুযায়ী প্রথমে সেই শিব তলায় গিয়ে পৌঁছাই তারপর এদিক ওদিক দেখতে থাকি কিন্তু কিছু বুঝে না পেরে শেষে কালি মা এর মন্দিরে যাই ও ওখনেও আমি এদিক ওদিক দেখি কিন্তু কিছুই খুজে পাই না আর আওয়াজ টাও আর শুনতে না পারায় আমি আমার মনের ভুল ভেবে ঘরে চলে আসি আর ঘুমিইয়ে পরি, তার পরে বেস কয়েক দিন আর শব্দ টা আমি আর শুনতে পাই নি তাই আমি পুরপুরি ভাবেই সেই সব কথা মাথা থেকে ঝেরে ফেলি।

কিন্তু বেশ কয়েক সপ্তাহ পরে ঠিক সোমবার মানে যেদিন আমি ঘরে একা ঘুমাই সে দিনি আমার সাথে একটা অদ্ভুত ঘটনা ঘটে আমি যখন সুলাম তখন ঠিক তার কিছু মুহূর্ত পরেই আমার যেন মনে হল যে কেউ যেন আমার পাসে সুয়ে আছে কিন্তু আমি ঘুরে দাখায় আমার পাসে কাউকে আমি দেখতে পাইনি কিন্তু সে রাতে আমার বার বার একই অনুভূতি হয়ায় আমার ঘুম টা যেন আর আসছিলই না, কিন্তু তার পরবর্তী সময়ে যেটা আমার সাথে হয় সেটা এখনও বললে আমার গা এ কাটা দিয়ে ওঠে কারণ তারপর মুহুরতে আমার মনে হতে থাকে যে কাউ যান আমার জড়িয়ে ধরে আছে আর আমি কিছুতেই যেন আর নরতে পারছি না সেই সময় যে আমার সাথে কি হচ্ছিল আমি এখনও ভেবে উঠতে পারি না; কিছুক্ষণ পরে যেকোনো ভাবে বাবা কে ফোন করে আমার ঘরে আসতে বলি ও সেদিন থাকে আমি মা-বাবার পাসের ঘরেই সুই ওই ঘরে রাতে আর যাই না।

জানি না সেই শব্দ সেই পাসে থাকা জিনিস আসলে আমার মনের ভুল ছিল নাকি অন্য কিছু।

আরো পড়ুন: Bangla Bhuter Golpo – জমিদার বাড়ির ভালো ভূত

Leave a Comment