New Bhuter Golpo – পরীক্ষার আগের রাতের সেই ভৌতিক ঘটনা

এই ঘটনাটা ছিল অভিজিতের সাথে আজ থেকে প্রায় পাঁচ বছর আগের কথা।অভিজিতের বাড়ি ছিল কানপুর ও সেইখান থেকে তার পরিবার একটি নতুন ঘর নিয়েছিল। অভিজিতের সামনে 12 ক্লাসের বোর্ড এর পরীক্ষা প্রায় এসেই পড়েছিল ও সে ওর জন্য তৈরি হচ্ছিল অভিজিৎ ছিল পড়াশোনায় খুব মেধাবী ছাত্র। কিন্তু একটি আশ্চর্যজনক কথা যখন সে তার নতুন ঘরে এসেছিল তারপর থেকেই অভিজিৎ এর পড়ায় মন সরে যেতে লাগলো। ও তার পরীক্ষাগুলো খারাপ হতে লাগল ও সে একটু অন্যরকম হয়ে যায়। সে সব সময় তার নতুন ঘরে শুয়ে বসে দিন কাটাতো ও সে আস্তে আস্তে রাগী হতে থাকলো ও সেই সব দেখার পর তার মা-বাবা এই বিষয়টা নিয়ে জানতে পারল ও তাদের অনেক চিন্তার মুখে আনলো অভিজিৎ। ও তার পরিবার অভিজিৎ এর কাছ থেকে সবকিছু জানার চেষ্টা করল কিন্তু কোন কাজ হলোনা তার মা-বাবাকে সে কিছুই বলল না। অভিজিতের একজন এরিক আছে মানুষ ছিল তার মামা তার মামাকে সে সবকিছু প্রাণ খুলে বলতো।ও তার মামা ছিল এক মস্ত বড় পন্ডিত ও তার মামা সেই নতুন বাড়িতে এই প্রথম এসেছিল যখন আসলো তখন তাদের বাড়ি থেকে অশুভ শক্তির প্রভাব দেখতে পেল ও সব থেকে বেশি বুঝতে পারল যে সেটা অভিজিতের ঘর থেকে আসছে। তার মামা অভিজিৎ কে তার কাছে ডাকে ও তাকে ভালোভাবে জিজ্ঞাসা করে সত্যি কি তোমাকে কেউ জ্বালাতন করে ও অভিজিৎ অনেক ভাবে বলেন যে আমার মনে হয় যে আমার ঘরে আমার সাথে আরো অনেক লোক থাকে এবং সারাদিন তাকে অনেক অনেক রকম লোক দেখা দেয়। তারা যেন দেখা দিয়ে আবার যেন কোথাও হারিয়ে যায়। কখনো বিছানায় সে একটি মহিলাকে বসে থাকতে দেখে কখনো তা জান না সামনে একটি বাচ্চা ছেলেকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে।

পরের দিন তার বাবা অভিজিতের কথা শুনে তাদের প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারলো যে তারা নাকি যে ঘরে থাকে সেই ঘরের নিচে নাকি অনেক বছর আগে একটি বিশাল আকারের কুয়ো ছিল ও অনেক লোকের ওই কই পড়ে মৃত্যু হয়েছে তার জন্যই ওই কুয়া বন্ধ করে দেয়। ও তার মামা যখন অভিজিতের পরিবারকে বলে এইসব ঘটনা ও সেই ঘটনা শোনার পর তারা অনেক ভয় পেয়ে যায়। ও সে আরো বলে যে সেই ভৌতিক ঘটনা ঘটার কারণ হলো সেই কুয়ো টার জন্য। সেই কুয়োতে যারা যারা মরেছে সেই আত্মা গুলি এখনো মুক্তি পায়নি সেই আত্মা গুলি অভিজিৎকে দেখা দেয়।

তার মামা তাদের পরিবার কে বলে যে আমি কাল সকালে আসবো ওই কি পুজো করবো ওইটাও বলে যে আজকের রাতটা যেন অভিজিৎকে তারা যেন তাদের সঙ্গে নিয়ে শুয়ে।

New Bhuter Golpo

ও সেই রাতে অভিজিৎ কে তার ঘরে পরীক্ষার জন্য পড়া করছিল ও যখন তারা মা অভিজিৎকে সবার জন্য ঘরে ডাকে অভিজিৎ বলে যে এই তো আমার পড়া প্রায় শেষের দিকে যখন পড়া প্রায় শেষ হয়ে গেছে তখন নবীজির দেখে যে আবার একটি মহিলা তার বিছানার উপর বসে আছে সেই ছোট বাচ্চাটা আমার জানালা সামনে দাঁড়িয়ে আছে। অভিজিৎ ভাই ভাই বলল যে কে ওখানে কে ওখানে তারপর অভিজিতের সাথে যেটা ঘটলো এবং সেটা সে কোনদিনও ভুলতে পারিনি। সে দেখল যে সেই ছোট্ট বাচ্চাটি তার গলা উল্টো দিকে ঘোরানো তারপর সেই মহিলাটি তার গলা উল্টো দিকে ঘোরালো সেই ঘরের এর নিচ দিয়ে সে দেখতে পেল যে অনেক লোক বেরিয়ে আসছে ও আস্তে আস্তে অভিজিতের কাছে আসতে লাগলো ও অভিজিৎ কে সবাই মিলে মাটির নিচে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করল ও তাদের চেহারা গুলি ছিল অনেক ভয়ানক লম্বা লম্বা হাত, কারোর গলাকাটা, কারোর পা নেই, চোখ নেই।ও তখন অভিজিৎ জোরে জোরে চিল্লাতে লাগলো বাঁচাও বাঁচাও বাঁচাও ও তার মা বাবা তার ঘরে আসলো লাইট জ্বালিয়ে তারা দেখল অভিজিৎ মাটিতে পড়ে আছে কিন্তু সে অজ্ঞান হয়ে পড়েনি সে মাটিতে পড়ে বসে থর থর করে কাঁপছিল এবং তার আশে পাশে কেউ ছিল না সে খুব ভয় পেয়ে গেছিল ও তার শরীর অনেক খারাপ হয়ে গেছিল ও তার পরিবার অভিজিৎকে হসপিটালে নিয়ে যায়।

অভিজিৎ এতটাই ভয় পেয়ে যায় যে তার ঘুম আসছিল না সে শুধু উল্টাপাল্টা বকছিলো এর জন্য ডাক্তার তাকে ঘুমের ইনজেকশন দিয়ে ঘুম পাড়ায় তারা এতটাই শরীর খারাপ হয়ে পরেছিল যে সে হসপিটালে এক সপ্তাহ ধরে ভর্তি ছিল ও এর মধ্যেই তার মামা তাদের ঘরের জন্য শান্তির পুজো করেন

অভিজিৎ যখন ঠিক হয় তার মা-বাবা কিছুদিনের জন্য তাকে মামাবারি তে দিয়ে আসে। যখন তার পরিবার আবার নতুন করে কোথাও শিফট হয় তখন আবারও অভিজিৎকে নিয়ে আসে তাদের নতুন বাড়িতে। সেই বছর সে তার বোর্ড এর পরীক্ষা দিতে পারিনি। সে আজও গভীর রাতে পড়তে পারে না ও প্রত্যেক পরীক্ষার সময় ওই ভয়ানক কথাটা তার মনে পড়ে।                                              

                                                                 সমাপ্ত

হ্যালো বন্ধুরা আমার  New Bhuter Golpo টি পড়ে আপনাদের কেমন লাগলো তা বিস্তারিত আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন এবং যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তবে এই গল্পটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। গল্পটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। পরবর্তী সময়ে ওয়েবসাইটে যুক্ত থাকবেন। নমস্কার।

আরো পড়ুন: Golpo golpo – জানিনা কি ছিল সেটা, ভয় না ভুলঃ

Leave a Comment